ঐ দিন কি হয়েছিল ? নবীজির নামাজ কেন কাজা হয়েছিল ? কি হলো তারপর…..

এক রাতে নবীজি (সা.) সাহাবিদের নিয়ে সফর করছিলেন। রাত শেষে বিশ্রামের বিরতি হয়। হজরত বেলাল (রা.) কে ফজরের নামাজের জন্য জাগিয়ে দেয়ার দায়িত্ব দিলেন। এরপর সবাই ঘুমিয়ে পড়লেন। এ দিকে হজরত বেলালও (রা.) ক্লান্ত। তিনিও ঘুমে আচ্ছন্ন। ফজরে কাউকে জাগাতে পারেননি। সবার ফজরের নামাজ কাজা হয়ে যায়।

নবীজি (সা.) ঘুম থেকে জেগে সূর্য ওঠার কিছুক্ষণ পর সবাইকে নিয়ে ফজরের নামাজ কাজা করলেন। বোখারি শরিফ : ৫৯৭ জুমা নামাজের কাজা নেই : জুমা নামাজের কাজা নেই। জুমা পড়তে না পারলে চার রাকাত জোহার কাজা পড়তে হবে। কাজা নামাজের সময় : কাজা নামাজ পড়ার কোন নির্দিষ্ট সময় নেই। যখনই স্মরণ হবে এবং সুযোগ হবে পড়ে নিতে হবে। তবে নিষিদ্ধ সময়গুলোতে মনে পড়লে অপেক্ষা করতে হবে।

দীর্ঘ কাজা হলে : কারো যদি কয়েক মাস এবং বছর নামাজ কাজা হয়ে যায়, তাহলে তার উচিত কাজা নামাজ একটা অনুমান করে নিয়ে কাজা পড়া শুরু করা। এ অবস্থায় কাজা নামাজ পড়ার নিয়ম এই যে, সে যে ওয়াক্তের কাজা পড়তে চাইবে সে ওয়াক্তের নাম নিয়ে বলবে যে, অমুক ওয়াক্তের সবচেয়ে প্রথম বা শেষ নামাজ পড়ছি। যেমন কাজা হওয়া নামাজের মধ্যে ফজরের নামাজের কাজা পড়তে চায়। তাহলে বলবে, ফজরের সবচেয়ে প্রথম অথবা শেষ নামাজ পড়ছি। এভাবে পড়তে থাকবে যাতে সকল কাজা নামাজ পুরা হয়ে যায়। ভ্রমণের সময়ের কাজা : সফরে যে নামাজ কাজা হবে তা মুকিম হয়ে পড়তে গেলে কসর পড়বে। কসর মানে চার রাকাত বিশিষ্ট নামাজ দুই রাকাত পড়বে। তেমনি মুকিম অবস্থায় কাজা হলে সফরে তা পুরা পড়তে হবে।

ফরজ বা ওয়াজিব নামাজ সময় মতো পড়তে না পারলে, সময় উত্তীর্ণ হওয়ার পর পড়া হলে তাকে কাজা নামাজ বলে। পাঁচ ওয়াক্তের ফরজ নামাজ ছুটে গেলে কাজা করা ফরজ। এশার নামাজের সময় বেতরসহ যে কোনো ওয়াজিব নামাজের কাজা করা ওয়াজিব। নফল নামাজ শুরু করার পর ওয়াজিব হয়ে যায়। কোন কারণে নফল নামাজ নষ্ট হলে অথবা শুরু করার পর কোন কারণে যদি ছেড়ে দিতে হয়, তাহলে তার কাজা করাও ওয়াজিব। সুন্নতে মুয়াক্কাদা এবং নফলের কাজা নেই। তবে ফজরের নামাজ সুন্নত-ফরজ উভয়টা পড়তে না পারলে সুন্নত-ফরজ এক সঙ্গে কাজা করা উত্তম। দুপুরের চার রাকাত সুন্নত পড়তে না পারলে ফরজের পরও পড়ে নেওয়া যায়। ফরজের পর যে দুই রাকাত সুন্নাত আছে তার আগেও পড়া যায় এবং পরেও পড়া যায়। তবে দুপুরের ওয়াক্ত চলে গেলে কাজা ওয়াজিব হবে না।

ব্রাজিলের বিশ্বকাপ জার্সি উন্মোচিত হলো..!!

ব্রাজিল ফুটবল কর্তাদের ফাঁকি দিয়ে আগেই ফাঁস হয়ে যায় আসন্ন বিশ্বকাপে ব্রাজিলের নতুন জার্সি।

এবার ব্রাজিলের জার্সির নামটি দেয়া হয়েছে ‘মিডওয়েস্ট গোল্ড’। ১৯৮০ সালের দলকে সম্মান জানাতে এ নাম বেছে নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। প্রায় এ রকমই জার্সি পরে ওই আসরে মাঠ মাতিয়েছিলেন কিংবদন্তি সক্রেটিস। ঐতিহ্যগতভাবে হলুদ জার্সি পরে এবারো মাঠ কাঁপাবেন নেইমার-জেসুস-কুতিনহোরা। তবে রঙে কিছুটা পরিবর্তন এসেছে। হালকার পরিবর্তে নেইমার-কুতিনহোদের জার্সিটি হয়েছে গাড় হলুদ। রয়েছে হালকা দাগ টানা, তবে নেই কলার।

বিশ্বকাপের সফলতম দলের জার্সিতে বরাবরের মতো এবারও সৌন্দর্য্যের কমতি নেই। ব্রাজিলের এবারের জার্সি তৈরি করেছে খেলার সরঞ্জাম প্রস্তুতকারী জনপ্রিয় কোম্পানি নাইকি। রাশিয়া বিশ্বকাপের জন্য এই জার্সির কয়েকটি ছবি আগেই ফাঁস হয়েছিল। এবার আনুষ্ঠানিকভাবে সেটি প্রকাশ করলো নাইকি।

১৭ জুন সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচ খেলবে ব্রাজিল। ‘ই’ গ্রুপে ব্রাজিলের অন্য দুই প্রতিপক্ষ কোস্টারিকা এবং সার্বিয়া। ২২ জুন কোস্টারিকা ও ২৮ জুন সার্বিয়ার মুখোমুখি হবে ব্রাজিল।
তার আগে বর্তমান্ চ্যাম্পিয়ন জার্মানি আর বিশ্বকাপের আয়োজক দেশ রাশিয়ার মুখোমুখি হবে ব্রাজিল। বিশ্বকাপে মাঠে নামার আগে ১০ জুন নিজেদের শেষ প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে হলুদ জার্সিধারীরা। সেই ম্যাচে কোচ তিতের শিষ্যদের প্রতিপক্ষ অস্ট্রিয়া।

শয়তানকে সৃষ্টি করা হলো যে কারণে !

আল্লাহ তাআলার সেরা ও প্রিয় সৃষ্টি মানুষ। এ মানুষের পরীক্ষা গ্রহণের জন্যই আল্লাহ তাআলা অভিশপ্ত শয়তানকে সৃষ্টি করেছেন। কে আল্লাহকে প্রকৃত পক্ষে ভালোবাসে; আর কে আল্লাহকে লোভ-লালসায় পড়ে ভুলে যায়; তা নির্বাচনের সেরা মাধ্যম হলো বিতাড়িত শয়তান ও তার ধোঁকা ও প্রতারণা।আল্লাহ তাআলা ইবলিসকে কেয়ামত পর্যন্ত হায়াত দিয়ে মানুষের ঈমান ও আল্লাহর প্রতি একনিষ্ঠতার পরীক্ষায় স্বাধীন কাজের ক্ষমতা দিয়ে ছেড়ে দিয়েছেন।

শয়তানের কাজ হলো মানুষকে ছলে-বলে; কলে-কৌশলে আল্লাহর পথ থেকে বিপথগামী করা; আল্লাহর পথ থেকে বিচ্যুৎ করে তাকে ধোঁকা দেয়া। এ কারণেই ইবলিস মানুষকে কুমন্ত্রণা দেয়ার সময় এ কৌশল অবলম্বন করে-‘(ওরা) শয়তানের মতো যে মানুষকে বলে, ‘কুফরি কর’, অতঃপর যখন সে (মানুষ) কুফরি করেতখন শয়তান বলে, তোমার সঙ্গে আমার কোনো সম্পর্ক নেই। নিশ্চয় আমি বিশ্বজাহানের প্রতিপালক আল্লাহকে ভয় করি।’ (সুরা হাশর আয়াত ১৬)
আল্লাহ তাআলা মানুষকে শয়তানের বলয়মুক্ত করে সঠিক পথের ওপর রাখার জন্য যুগে যুগে জীবন-ব্যবস্থা স্বরূপ আসমানি কিতাবসহ অসংখ্য নবি-রাসুলকে পাঠিয়েছেন।

সে মতে হজরত আদম আলাইহিস সালাম থেকে শুরু করে সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বশেষ নবি ও রাসুল হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পর্যন্ত অসংখ্য নবি-রাসুল দুনিয়ায় দ্বীনের সঠিক পথের দাওয়াত দিয়েছেন।বর্তমানে সর্বশেষ ঐশীগ্রন্থ পবিত্র কুরআনের ধারক ও বাহক মুসলিম ওলামায়ে কেরামও শেষ নবির ‘ওয়ারিছ’ হিসাবে আল্লাহর প্রেরিত ওহির বিধানসমূহ বিশ্বব্যাপী পৌঁছে দেবার দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। যাতে মানুষ শয়তানের ধোঁকা বা প্রতারণামুক্ত থাকতে পারে। ইবলিসের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারে।

যা কেয়ামতের পূর্ব পর্যন্ত জারি থাকবে।প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন, ‘পৃথিবীর এমন কোনো বস্তি ও ঝুপড়ি ঘরও বাদ থাকবে না; যেখানে আল্লাহ পাক ইসলামের বাণী পৌঁছে দেবেন না।’ (মুসনাদে আহমদ, মিশকাত)এমন এক সময় আসবে যখন পৃথিবীতে ‘আল্লাহ’ বলার মতো কোনো লোক থাকবে না। তখন আল্লাহর হুকুমে মহাপ্রলয় কেয়ামত সংঘটিত হবে। মানুষের দেহগুলো মাটিতে মিশে যাবে; রূহ গুলো স্ব স্ব আমল অনুযায়ী ইল্লিন বা সিজ্জিনে অবস্থান করবে। (সুরা মুতাফফিফিন)মানুষের দেহগুলো আল্লাহর হুকুমে কেয়ামতের পর স্ব স্ব দেহে পুনরায় প্রবেশ করবে (সুরা ফরজ) এবং চূড়ান্ত হিসাব-নিকাশের জন্য সব মানুষ সশরীরে আল্লাহর দরবারে উপনীত হবে। (সুরা মুতাফফিফিন)সুতরাং মানুষের জন্য এ দুনিয়া হলো পরীক্ষাগার। আর ইবলিসের মাধ্যমেই আল্লাহ তাআলা এ পরীক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রাখবেন। যারা শয়তানের ধোঁকা ও প্রতারণামুক্ত থাকবে তারাই সফলকাম। পরীক্ষার সফলতা লাভ করে তারা ফিরে যাবে জান্নাতে।যে জান্নাত থেকে একবার ইবলিসই হজরত আদম ও হাওয়া আলাইহিস সালামকে বিতাড়িত করেছিল। জান্নাতই হবে সফল মানুষদের চিরস্থায়ী আবাস।আল্লাহ তা্অলা মুসলিম উম্মাহকে দুনিয়ায় ইবলিসের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার তাওফিক দান করুন।

রিলিজ হলো ‘বাঘি ২’ ছবির প্রথম গান । প্রথম গানেই বাজিমাত (ভিডিও)

টাইগার শ্রফ আর দিশা পাটানির এই ছবিটির প্রথম গান ‘মুন্দিয়া’। যা ধারণা করা হয়েছিল, তা-ই। বিখ্যাত ভারতীয় ভাঙড়া গায়ক, গীতিকার ও কম্পোজার লাভ জানজুয়ার সুপারহিট ভাঙড়া নাম্বার ‘মুন্দিয়া তো বাচ কে’র রি-মিক্স এটা। দেশি পার্টি নাম্বার এর মতো করে করা হয়েছে এই মুম্বাইয়া কম্পোজিশনটি।

গানটি নতুন করে লেখা হয়েছে। নতুন কথা সাজিয়েছেন গিনি দিওয়ান আর রি-কম্পোজ করেছেন সন্দ্বীপ শিরোদকার। কোরিওগ্রাফি করেছেন রাহুল শেট্টি। দারুণ এই পার্টি নাম্বারটি সবার ভালো লাগবে বলে আশা করছে সংশ্লিষ্ট সবাই।

পোস্টার আর টিজার-ট্রেলারেই অর্ধেক বাজিমাত। এবার রিলিজ হলো ছবিটির প্রথম গান। আর তাতেই পুরো বাজিমাত।

দেখুন গান টি ভিডিও তে

সূত্র : ডিএনএ

প্রকাশ পেল ‘বাঘি-২’ ছবির ট্রেইলার …। একদিনেই ট্রেইলার দেখা হলো ৬ কোটি বার ।

বলিউড লাইফ ডটকমের খবরে প্রকাশ, ইউটিউব, ফেসবুক, হটস্টার ও স্টার টিভি নেটওয়ার্ক—সব মিলিয়ে ৬০ মিলিয়ন বা ছয় কোটি বার দেখা হয়েছে ‘বাঘি-২’ ছবির ট্রেইলার। এর মধ্যে ফেসবুক ও ইউটিউব মিলিয়ে ট্রেইলারটি দেখা হয়েছে দুই কোটি বার।

ছবিটি প্রযোজনা করেছে সাজিদ নাদিয়াদওয়ালা ও ফক্স স্টার স্টুডিওস। পরিচালনায় ছিলেন আহমেদ খান। ছবির কেন্দ্রীয় নারী চরিত্রে অভিনয় করছেন দিশা পাটানি। এ ছাড়া রয়েছেন রণদীপ হুদা, প্রতীক বাবর ও মনোজ বাজপেয়ি।

চলতি বছরের ৩০ মার্চ ছবিটির মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে।

এখনও না দেখে থাকলে আপনি ও দেখে নিন ট্রেইলার টি …।