পাকিস্তানি অভিনেত্রী মাহিরা খানের ধূমপানের ভিডিও আবারো ভাইরাল.!! (ভিডিও সহ )

২০১৭ সালে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছিল রণবীর কাপুর ও মাহিরার একসঙ্গে ধূমপান করার ছবি। এ নিয়ে কম জল ঘোলা হয়নি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। মাহিরার ধূমপান ও তাঁর ধর্ম নিয়ে তখন অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন। প্রথমে সমালোচনার তীব্র জবাব দিলেও পরে সবার কাছে ক্ষমা চেয়েছিলেন মাহিরা।

তবে ক্ষমা চাইলেও আবার ধূমপান করে ভাইরাল হয়েছেন তিনি। ডেকান ক্রনিকেলসের খবরে প্রকাশ, গতবার ছবি ছড়িয়ে পড়লেও এবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে মাহিরার ধূমপানের ভিডিও। নিজের আসন্ন পাকিস্তানি ছবি ‘ভেরনা’র প্রচারে লন্ডনে গিয়েছিলেন ‘রইস’খ্যাত এই তারকা। প্রচার শেষে লন্ডনে একটি নাচের অনুষ্ঠানে যোগ দেন তিনি। সেখানে জনপ্রিয় গানের তালে নাচ পরিবেশন করতে দেখা যায় তাঁকে। অনুষ্ঠান শেষে উপস্থিত সবার সামনেই ধূমপান করেন তিনি। তাঁর ব্যক্তিগত ম্যানেজার সবার সামনে ধূমপান করতে নিষেধ করলেও তা শোনেননি মাহিরা। বেশ হাসিখুশি ও সহজ ঢঙে ধূমপান চালিয়ে যান তিনি। তবে তিনি ভাবতেও পারেননি, আবারও এই ধূমপান ভাইরাল হবে।

এদিকে মাহিরার ধূমপানের ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়তেই উঠেছে প্রশ্নের ঝড়। গতবারের মতো এবারও সবার সম্মুখে মাহিরার ধূমপান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই। তবে এবার ইতিবাচক কিছু মন্তব্যও পেয়েছেন মাহিরা। সামাজিক মাধ্যমে মাহিরার অনেকে ভক্ত পাল্টা প্রশ্ন ছুড়েছেন, পুরুষেরা যদি সবার সম্মুখে ধূমপান করতে পারেন, তাহলে মাহিরা কেন পারবেন না?

দেখুন ভিডিও

মাহিরা খানের নতুন ছবি ‘সাত দিন মোহাব্বাত ইন’ এর ফার্স্ট লুক প্রকাশ !!

নিজ দেশ পাকিস্তানে মুক্তি পেতে যাচ্ছে তাঁর অভিনীত রোমান্টিক কমেডি ড্রামা ‘সাত দিন মোহাব্বাত ইন’। ছবিতে তাঁর বিপরীতে আছেন শেহরিয়ার মুনাওয়ার।

মাহিরা যে চরিত্রে রূপ দান করবেন সেটির নাম ‘নীলি’। আর এই নীলি চরিত্রটি কেমন হবে তাঁরই একটি লুক সম্প্রতি নিজের ট্যুইটার হ্যান্ডেলে ভক্তদের জন্য শেয়ার করেছেন এই প্রতিভাবান পাকিস্তানি অভিনেত্রী।

ছবিতে টিপুর (শেহরিয়ার মুনাওয়ার) কাজিন এবং খুব ভালো বন্ধু নীলি। নীলি খুব আকর্ষণীয় এবং উদ্যমী এক তরুণী। যে তার স্বপ্নের রাজ্যে বসবাস করে। এটি একটি নির্ভেজাল রোমান্টিক কমেডি ছবি।

প্রতিভাবান পাকিস্তানি পরিচালক জুটি মেনু গৌর আর ফারজাদ নবী’র সাথে চিত্রনাট্যে আছেন ফাসিহ বারী খান। রানা কামরান এর সিনেমাটোগ্রাফিতে নির্মিত ছবিটি প্রডাকশনে আছে ডন ফিল্মস। ছবিটি ঈদুল ফিতর উপলক্ষে বিশ্বব্যাপী মুক্তি পাবে।
সূত্র : ডিএনএ

শাকিব খানের নতুন ছবি ‘চালবাজ’র ট্রেইলার প্রকাশ । ভিডিও সহ

শনিবার বাংলাদেশি সুপারস্টার শাকিব খান ও কলকাতার সুপারহিট শুভশ্রী গাঙ্গুলীর নতুন ছবি ‘চালবাজ’র ট্রেইলার প্রকাশ করা হয়েছে। ছবিটি পরিচালনা করছেন জয়দীপ মুখার্জী।

‘চালবাজ’ ছবিটির প্রযোজনা করছে ভারতের এসকে মুভিজ ও বাংলাদেশের অ্যাকশনকাট এন্টারটেইনমেন্ট। দর্শকদের বেশিরভাগই ট্রেইলারের প্রশংসা করেছেন। শাকিবের মজবুত ডায়লগ আর লুকে ভক্তরা দিশেহারা। এই ট্রেলারেই শাকিবের মুখে শোনা যায়, টাকার জন্য আমি সব করতে পারি।

এদিকে ভক্তরা একটু হতাশও বটে। তারা আগ থেকেই ছবির গল্পটা জানেন আবার দেখেছেনও। কারণ ছবিটি রিমেক হিসেবে নির্মাণ করা হয়েছে। ‘চালবাজ’ ছবিটি তেলেগু ছবি ‘প্যাটেল অন সেল’ এর রিমেক।
দেখুন ট্রেইলার

শাহরুখ,সালমান ও আমির বলিউডের তিন খানের মধ্যে এগিয়ে কে ??

বলিউডের তিন খান-শাহরুখ খান, সালমান খান ও আমির খান। অন্য সব তারকার চেয়ে এই তিনজন যে সেরা তাতে কোনো সন্দেহ নেই কিন্তু তাঁদের মধ্যে সেরা কে? এই নিয়ে রয়েছে তাঁদের দর্শক-ভক্তদের মতভেদ। তাই দর্শক সংখ্যা দিয়েই তা বিচারে দায়িত্ব নিয়েছে জুম টিভি। বক্স অফিসের সৌজন্যে গত ১০ বছরে এই তিন খানের জনপ্রিয় সব ছবির দর্শক সংখ্যার বিচারে চলুন জেনে নিই, এগিয়ে রয়েছেন কোন তারকা।

১. দঙ্গল (২০১৬) – ৩,৬৯,৯৬,০০০ জন।

২. বজরঙ্গি ভাইজান (২০১৫) – ৩,৫৪,১৭,০০০ জন।

৩. পিকে (২০১৪) – ৩,৫০,৬১,০০০ জন।

৪. সুলতান (২০১৬) – ৩,২০,৮৫,০০০ জন।

৫. থ্রি ইডিয়টস (২০০৯) – ৩,১৭,৮৫,০০০ জন।

৬. ধুম ৩ (২০১৩) – ২,৯৭,৯৩,০০০ জন।

৭. চেন্নাই এক্সপ্রেস (২০১৩) – ২,৫২,২৭,০০০ জন।

৮. দাবাং (২০১০) – ২,৫০,৮৬,০০০ জন।

৯. এক থা টাইগার (২০১৪) – ২,৪৭,৩৯,০০০ জন।

১০. কিক (২০১৪) – ২,৪১,৯২,০০০ জন।

সালমান খানের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান…।

সালমান খান একটি ঘোড়া কিনতে চেয়েছিলেন। কিন্তু মালিক বিক্রি করবেন না। সালমান খান মাত্র একটি ঘোড়ার জন্য ২ কোটি রুপি অফার করেন কিন্তু সেই অফার রিফিউজ করে দেন ঘোড়ার মালিক।

এক বছর আগে পাঞ্জাবের বাদল পরিবার ‘সাকাব’ নামের ওই ঘোড়াটি কেনার জন্য সুরতের নিকটবর্তী ওলপাড শহরের সিরাজ খান পাঠানকে এক কোটি ১১ লাখ রুপি প্রস্তাব দেন। কিন্তু মালিজ সিরাজ খান বাদল পরিবারকে ফিরিয়ে দেন।

সম্প্রতি ‘সাকাব’কে কেনার জন্য আগ্রহী হয়ে ওঠেন বলিউড সুপারস্টার সালমান খান। তিনি মালিককে ২ কোটি রুপি অফার দেন কিন্তু সেই অফার বিফলে যায়। কিনতে পারেন নি সালমান। এরপর আরো ৭ জন ব্যাক্তি ওই ঘোড়া কেনার প্রস্তাব দিয়েছিলেন মালিক সিরাজখান পাঠানকে। কিন্তু সেই একইভাবে তারাও প্রত্যাখ্যাত হয়ে ফিরে যায়।

কিন্তু বিপুল পরিমাণ অর্থের বিনিময়েও সামান্য একটি ঘোড়া কেন বিক্রি করতে চান না সিরাজ খান পাঠান? সামান্য ঘোড়া বলা হলেও আসলে এটি যেমন তেমন ঘোড়া নয়। গোটা ভারত বর্ষে শুধু একটি এই প্রজাতির ঘোড়া রয়েছে। এছাড়াও গোটা বিশ্বে এই প্রজাতির আর মাত্র দুটি ঘোড়া রয়েছে। একটি যুক্তরাষ্ট্রে অন্যটি কানাডায়।

বিশেষত্ব কী এই ঘোড়ার? বিশেষত্ব তো আছেই। এই দুর্লভ প্রজাতির ঘোড়া সরল পথে ঘণ্টায় ৪৭ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে। এছাড়া এতোই নিরীহ প্রজাতির ঘোড়া এটা যা অশ্বারোহীকে বিন্দুমাত্র সমস্যায় ফেলে না। অর্থাৎ যে কেউ স্বাভাবিকভাবে এই ঘোড়া আরোহন করতে পারেন, পড়ে যাওয়ার ভয় নেই।

সবচেয়ে মজার বিষয় এই ঘোড়ার দুই চোখ দুই রঙের। একটি কালো চোখ, অন্যটি সাদা চোখ। এটাকে প্রথমে ‘তুফান’ নামে ডাকা হলেও এখন তার নাম সাকাব।