স্বপ্ন ভঙ্গ টটেনহ্যামের, কোয়ার্টার ফাইনালে জুভেন্টাস ..।।

টটেনহ্যামের ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে ৯০ হাজার দর্শকের সামনে জুভরা আবার যা দেখালো তাতে নিশ্চয় তাদের ‘ফুটবল তারুণ্য’ নিয়ে কোন প্রশ্ন নেই।

প্রথম লেগে ঘরের মাঠে ২-২ গোলে ড্রয়ের পর টটেনহ্যামের মাঠে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে ইতালির অন্যতম সেরা এই দলটি।

প্রথমার্ধের শেষের দিকে গোল খেয়েও ২-১ গোলের জয় পেয়েছে জুভরা। দুই লেগ মিলিয়ে ৩-২ গোলের ব্যবধান উঠে গেছে কোয়ার্টার ফাইনালে।ঝুরঝুর করে ভেঙে পড়েছে টটেনহ্যাম খেলোয়াড় ও সমর্থকদের সাত বছর পরে চ্যাম্পিয়ন লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল খেলার স্বপ্ন।

টটেনহ্যামের জন্য গলার কাটা হয়ে থাকবে ম্যাচের ৬৪ ও ৬৭ মিনিট। পুরো ম্যাচে যে ওই তিন মিনিটই খেলার উপরে নিয়ন্ত্রণ ছিল না স্পারদের। ম্যাচের ৫৫ শতাংশ বল দখলে রেখেছে। জুভেন্টাসের গোলে নয় শটের বিপরীতে টটেনহ্যাম বুফনের পরীক্ষা নিয়েছে ২৩ বার। কর্ণারও পেয়েছে ছয়টি। যেখানে জুভদের কর্ণার সাকুল্যে একটি। কিন্তু ওই যে, তিন মিনিটের ব্যাখ্যা নেই স্পারদের কাছে।

নেইমারবিহিন পিএসজিকে বিদায় করে কোয়ার্টার ফাইনালে রিয়াল…।।

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ও কাসেমিরোর গোলে পিএসজিকে ২-১ ব্যবধানে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে পা রেখেছে জিনেদিন জিদানের দলই।

নেইমারবিহীন পিএসজিকে বিদায় করে টানা অষ্টমবারের মতো কোয়ার্টার ফাইনালে উঠলো জিনেদিন জিদানের শিষ্যরা।

র্দান্ত জয় ছিনিয়ে নিলেও ম্যাচের প্রথমার্ধে অগোছালো ফুটবল খেলতে দেখা গেছে রিয়ালকে। অগোছালো হলেও গোলশূন্য ড্র নিয়ে বিরতিতে যায় দুদল। দ্বিতীয়ার্ধে গোল পেতে মরিয়া হয়ে ওঠে রিয়াল-পিএসজি। ৫১ মিনিটে ভাসকেজের ক্রসে হেডে বল ঠিকানায় পাঠান ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো।

পর্তুগিজ সুপারস্টারের এ গোলের সৌজন্যে শেষ আটে ওঠা অনেকটা নিশ্চিত হয় রিয়ালের।

সমতায় ফিরতে প্রাণপণ চেষ্টা চালায় পিএসজি। ৬৬ মিনিটে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন মার্কো ভেরাত্তি। ১০ জনের দলে পরিণত হলেও চেষ্টা থামেনি প্যারিসের দলটির। ফলে গোলের দেখাও পায় তারা। ৭১মিনিটে গোল করে দলকে সমতায় ফেরান এডিনসন কাভানি।

তবে এগিয়ে যেতে সময় লাগেনি রিয়ালের।

৮০ মিনিটে গোল করে সব শঙ্কার কালো মেঘ সরিয়ে দেন কাসেমিরো।

শেষ পর্যন্ত ২-১ গোলের জয়ে ক্লাবের জন্মবার্ষিকীতে সমর্থকদের উৎসব-আনন্দে ভাসান জিনেদিন জিদানের শিষ্যরা।