কিয়ামত কি খুব নিকটে ???

হযরত জিবরাঈল (আঃ) ২৪ হাজার বার দুনিয়াতে
হুজুর (সাঃ) এর দরবারে এসেছিলেন এক সাক্ষাতে।
হুজুর (সাঃ) জিবরাঈল (আঃ) কে জিঙ্গাসা
করেছিলেনঃ হে জিবরাঈল !
আমার ইন্তেকালের পরে তুমি কতবার দুনিয়াতে আসবে? তিনি বললেন, ১০
বার আসব এবং প্রতিবারই একটি করে জিনিস তুলে
নেব।

দশম জিনিসটা তুলে নেওয়ার পর ঈসরাফিল
(আঃ) সিঙ্গায় ফুঁ দিবেন এবং কেয়ামত আরম্ভ হবে।

দশটি জিনিস হল:-
১/ বরকত তুলে নেব।।
২/ এবাদত থেকে মজা তুলে নেব।।
৩/ পরস্পর মহব্বত তুলে নেব।।
৪/ লজ্জা তুলে নেব।।
৫/ হক বিচার তুলে নেব।।
৬/ ছবর (ধর্য্য) তুলে নেব।।
৭/ আলেম থেকে সত্য কথা তুলে নেব।। (অর্থাৎ একদল আলেম জানা সত্ত্বেও হক কথা বলবে না।)
৮/ ধনীদের সৎ সাহস উঠিয়ে নেব।।
৯/ ঈমানদার থাকবে না, ঈমান উঠে যাবে।।
১০/ ক্বারীদের কাছ থেকে কোরআনের তেলোয়াত তুলে নেব।।(অর্থাৎ কোরআনকে উঠিয়ে নেব।)

আফসোস আমাদের সমাজে সর্বশেষ ৯ ও ১০
নাম্বারটি বাকী রয়েছে, যেদিন এদুটি উঠে যাবে
সেদিনই হবে শেষ সময়।
হে ভাই/বোন তুমি ভয় কর সেদিনকে, যেদিন কেও
কাওকে সাহায্য করবে না।
বিধায় এখন হতে তাওবা
করে নবরুপে নিজের জীবনকে ইসলামের রঙে
রাঙিয়ে নাও এবং অপরকেও একই পরামর্শ দাও
তাহলেই শান্তি থাকবে সবার ঘরে।

ইসলামিক পোষ্টগুলো শেয়ার করার চেষ্টা করুন।
এতে করে যেমন অন্য বন্ধুরা জানতে পারবে তেমনি
সওয়াবও পাওয়া যাবে।
#______________________________________আমিন।

বলিউড সুপারস্টার সালমান খানকে বিয়ে করতে চান ঢালিউড নায়িকা পপি।

দুজনই অবিবাহিত। আবার বয়সটাও একটু বেশি। তাই হয়তো বলিউড সুপারস্টার সালমান খানকে বিয়ের ইচ্ছে পোষণ করতে একটুও দ্বিধা করলেন না দেশের জনপ্রিয় মডেল ও অভিনেত্রী সাদিকা পারভিন পপি।

গতকাল বুধবার বেসরকারি একটি টেলিভিশন চ্যানেলের একটি অনুষ্ঠানে তিনি মনের কথা প্রকাশ করেন।
শাহরিয়ার নাজিম জয়ের উপস্থাপনায় ওই অনুষ্ঠানে র‌্যাপিড প্রশ্নোত্তর পর্বে পপি বলেন, ‘সালমান খানকে বিয়ে করতে চাই, তবে শাহরুখ খানকেও ভালো লাগে।’

কতগুলো প্রেম করছেন- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘মিডিয়ায় কাজ করার কারণে অনেক ব্যস্ত সময় পার করতে হয়েছে। প্রেম করার সুযোগ হয়নি।
প্রেম করাটা অনেক কঠিন কাজ।

একটা মানুষ বহু মানুষের সঙ্গে প্রেম করতে পারে না। তবে পর্দায় অনেক প্রেম করেছি।’
নিজের বিয়ে প্রসঙ্গে পপি আরও বলেন, ‘বিয়ে নিয়ে তেমন কোন পরিকল্পনা নেই। ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে আমি অনেক হ্যাপি। কোটিপতি একজন স্বামীকে নিয়ে আমার আলাদাভাবে খুশি হতে হবে এমনটা আমি ভাবি না। কোটিপতি স্বামী ছাড়া আমি অনেক হ্যাপি।’

ব্যাটিং বিপর্যয়ে বাংলাদেশ

শুরুতেই মহা বিপর্যয়ে বাংলাদেশ। দলীয় ১৬ রান করতেই সাকিব-তামিম-এনামুল হককে হারিয়েছে বাংলাদেশ। শূন্য রানে লাকমালের শিকার হয়ে এনামুল ফেরার পর রান আউট হয়ে ফিরেন সাকিব আল হাসান। সাকিব ফিরে যাওয়ার পর টিকে থাকতে পারেননি তামিম ইকবাল।

ফিরে যাওয়ার আগে নিজের নামের সাথে ৫ রান যোগ করেন ওপেনার তামিম ইকবাল আর সাকিব ৮ রানে। এখন ক্রিজে আছেন মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। আর এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৫৪ রান।

প্রথম ম্যাচে মোটামুটি ভালো করলেও পরপর দুই ম্যাচে হতাশ করেন দীর্ঘ দিন দলের বাইরে থাকা এনামুল হক বিজয়। যথারীতি নিজের চতুর্থ ম্যাচেও হতাশ করলেন তিনি। প্যাভিলিয়নের ফিরলেন দলীয় ৫ রানের মাথায়। লাকমালের শিকার হয়ে এদিন তিনি ফেরেন শূন্য রানেই।

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হয়েছে বৃহস্পতিবার (২৫ জানুয়ারি) দুপুর ১২টায়। এর আগে বেলা সাড়ে ১১টায় টসে জিতে ব্যাটিংয়ের কথা জানান টাইগার ক্যাপ্টেন মাশরাফি বিন মুর্তজা।

পবিত্র ধর্মগ্রন্থ আল-কুরআনের ভুল খোঁজতে গিয়ে নিজেই মুসলমান হয়ে গেলেন !!

ড. গ্যারি মিলার ছিলেন কানাডার একজন খ্রিষ্ট ধর্ম প্রচারক। তিনি পবিত্র কুরআনের ভুল খোঁজার চেষ্টা করেছিলেন, যাতে ইসলাম ও কুরআন বিরোধী প্রচারণা চালানো সহজ হয়। কিন্তু ফল হয়েছিল বিপরীত। তিনি বলেন, আমি কোন একদিন কুরআন সংগ্রহ করে তা পড়া শুরু করলাম। প্রথমে ভেবেছিলাম কুরআন নাযিল হয়েছিল আরবের মরুচারীদের মধ্যে। তাই এতে নিশ্চয় মরুভূমি সম্পর্কে কথা থাকবে।কুরআন নাযিল হয়েছিল ১৪০০ বছর আগে। তাই খুব সহজেই এতে অনেক ভুল খুঁজে পাব ও সেসব ভুল মুসলিমদের সামনে তুলে ধরব বলে সংকল্প করেছিলাম। কিন্তু কয়েক ঘণ্টা ধরে কুরআন পড়ার পরে বুঝলাম আমার এসব ধারণা ঠিক নয়, বরং এমন একটা গ্রন্থে অনেক আকর্ষণীয় তথ্য পেলাম। বিশেষ করে সূরা নিসার ৮২ নম্বর আয়াতটি আমাকে গভীর ভাবনায় নিমজ্জিত করে। সেখানে আল্লাহ বলেন, ‘এরা কী লক্ষ্য করে না কুরআনের প্রতি? এটা যদি আল্লাহ ছাড়া অন্য কারও পক্ষ থেকে নাযিল হ’ত, তবে এতে অবশ্যই বহু বৈপরিত্য দেখতে পেত’। খ্রিষ্ট ধর্ম প্রচারক গ্যারি মিলার এভাবে ইসলামের দোষ খুঁজতে গিয়ে মুসলিম হয়ে যান।

তিনি বলেছেন, ‘আমি খুব বিস্মিত হয়েছি যে, কুরআনে ঈসা (আঃ)-এর মাতা মারিয়ামের নামে একটি বড় পরিপূর্ণ সূরা রয়েছে। আর এ সূরায় তাঁর এত ব্যাপক প্রশংসা ও সম্মান করা হয়েছে যে, এত প্রশংসা বাইবেলেও দেখা যায় না। পবিত্র কুরআনের বিভিন্ন স্থানে বিশ্বনবী মুহাম্মাদ (ছাঃ)-এর নাম মাত্র ৫ বার এসেছে। কিন্তু ঈসা (আঃ)-এর নাম এসেছে ২৫ বার। আর এ বিষয়টি ইসলাম ধর্ম গ্রহণের ক্ষেত্রে আমার ওপর ব্যাপক প্রভাব রেখেছে’।

পবিত্র কুরআনের ভুল খোঁজতে গিয়ে নিজেই মুসলমান হয়ে গেলেন

প্রাসঙ্গিক আলোচনা
ইসলাম মানুষের জীবনকে করে লক্ষ্যপূর্ণ। কারণ এ ধর্মের দৃষ্টিতে মানুষের জীবনের রয়েছে সুনির্দিষ্ট অর্থ ও লক্ষ্য। কিন্তু পশ্চিমা সরকারগুলো ইসলাম ও মুসলিমদের সম্পর্কে আতঙ্ক ছড়ানোর চেষ্টা করছে। তারা মুসলিমদেরকে পাশ্চাত্যের জন্য বিপজ্জনক বলে তুলে ধরছে। আর এই অজুহাত দেখিয়ে পশ্চিমা সমাজে মুসলিমদের উপর আরোপ করা হয়েছে নানা সীমাবদ্ধতা। ইউরোপ-আমেরিকার ক্ষমতাসীন সরকার ও ইসলাম-বিদ্বেষী দল বা সংস্থাগুলো এভাবে মুসলিম ও ইসলামের উপর আঘাত হানার পাশাপাশি নিজেদেরকে পশ্চিমা সভ্যতা এবং পশ্চিমা জনগণের সমর্থক হিসাবে জাহির করার পাশাপাশি জনগণকে বিভ্রান্ত করার মাধ্যমে ক্ষমতায় টিকে থাকার চেষ্টা করছেন।

পাশ্চাত্যে ইসলামের জনপ্রিয়তা ও প্রভাব ক্রমেই বাড়তে থাকায় ইসলাম বিরোধী মহলগুলোর ইসলাম-বিদ্বেষী তৎপরতাও জোরদার হয়েছে। বর্তমানে মুসলিমদের নিয়ে পশ্চিমা গণমাধ্যম ও জনমত ব্যাপক বিতর্কে মেতে রয়েছে। পাশ্চাত্যের উগ্র লেখক ফিলিপ রনডু বলেছেন, ‘মুসলিমরা হচ্ছে বিস্ফোরণের বোমার মত এবং ইসলাম বহু মানুষকে, বিশেষ করে ইউরোপের বহু মানুষকে আকৃষ্ট করছে’। বহুল প্রচারিত এক টাইম ম্যাগাজিনগুলোতে ইউরোপে মুসলিমদের সংখ্যা বৃদ্ধিকে ‘ইউরোপের পরিচিতির সংকট’ বলে অভিহিত করেছে।

২০১০ সালের শেষের দিকে সুইজারল্যান্ডে মসজিদের মিনার নির্মাণের ওপর নিষেধাজ্ঞার আইন চালু করার লক্ষ্যে এক গণভোট অনুষ্ঠিত হয়। এই পদক্ষেপের মূল পরিকল্পনাকারী ছিল ‘সুইস পিপলস পার্টি’ নামের একটি উগ্র খ্রিষ্টানপন্থী দল। মুসলিমদের ব্যাপারে আতঙ্ক সৃষ্টি করাই ছিল এই পদক্ষেপের লক্ষ্য। শেষ পর্যন্ত এই আইন পাশ করতে সফল হয় দলটি। দলটির পক্ষ থেকে সর্ব প্রথম এই আইন চাপিয়ে দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছিলেন সুইস রাজনীতিবিদ ড্যানিয়েল স্ট্রিচ। তিনি পুরো সুইজারল্যান্ডে ইসলাম-বিরোধী আন্দোলন ছড়িয়ে দেন এবং জনগণের মধ্যে ইসলাম-অবমাননার বীজ বপন করেন। ফলে সুইস জনগণ মসজিদের মিনার নির্মাণের বিরোধী হয়ে পড়ে এবং মিনার নির্মাণ নিষিদ্ধ হয়।

কিন্তু পরবর্তীতে ইসলাম পাশ্চাত্যে পূর্বের চেয়ে শক্তিশালী হয়ে উঠে। ফলে এক পর্যায়ে তিনি ইসলামের যৌক্তিক শিক্ষাগুলো ও পবিত্র কুরআন নিয়ে পড়াশুনা শুরু করেন এবং ইসলামের অকাট্য যুক্তি ও বাস্তবতার কাছে আত্মসমর্পণ করেন। এভাবেই সুইজারল্যান্ডে ইসলাম-বিদ্বেষী আন্দোলনের প্রধান নেতা সুইস রাজনীতিবিদ ড্যানিয়েল স্ট্রিচ নিজেই ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন।

ড্যানিয়েল স্ট্রিচ এখন একজন সামরিক প্রশিক্ষক এবং পৌরসভার সদস্য ও অঙ্গীকারাবদ্ধ মুসলিম। তিনি নিয়মিত মসজিদে আসেন, কুরআন অধ্যয়ন করেন ও পাঁচ ওয়াক্ত ছালাত আদায় করেন। ইসলাম গ্রহণের কারণ সম্পর্কে তিনি বলেছেন, ‘ইসলাম জীবনের গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নগুলোর যৌক্তিক জবাব দেয়, যা আমি কখনও খ্রিষ্ট ধর্মে খুঁজে পাইনি। আমি ইসলামের মধ্যেই খুঁজে পেয়ছি জীবনের বাস্তবতা’।

ড্যানিয়েল স্ট্রিচ এখন তার অতীতের কাজের জন্য লজ্জিত। তিনি সুইজারল্যান্ডে ইউরোপের সবচেয়ে সুন্দর মসজিদ নির্মাণের পরিকল্পনা নিয়েছেন। দেশটিতে এখন ৪টি মসজিদ সক্রিয় রয়েছে। ড্যানিয়েলের স্বপ্নের মসজিদটি নির্মিত হ’লে সুইজারল্যান্ডে মসজিদের সংখ্যা দাঁড়াবে ৫টিতে। তিনি দেশটিতে ইসলাম বিরোধী যে তৎপরতা ছড়িয়ে দিয়েছিলেন এভাবেই তার ক্ষতি পুষিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছেন। ড্যানিয়েল এখন ধর্মীয় স্বাধীনতা ও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের আন্দোলন গড়ে তোলারও চেষ্টা করছেন।

‘ওপিআই’ নামের একটি ইসলামী সংস্থার প্রধান আবদুল মজিদ আদলি এ প্রসঙ্গে বলেছেন, ‘ইউরোপের জনগণ ইসলাম সম্পর্কে জানতে ব্যাপকভাবে আগ্রহী। তাদের অনেকেই সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে ইসলামের সম্পর্ক নিয়ে গবেষণা করতে চান। ঠিক যেভাবে সুইজারল্যান্ডের ড্যানিয়েল এ পথে সচেষ্ট হয়েছিলেন। তিনি ইসলামের মোকাবেলা করতে গিয়ে পবিত্র কুরআনের সঙ্গে পরিচিত হন এবং ইসলাম সম্পর্কে ব্যাপক পড়াশুনা শুরু করেন। তিনি চেয়েছিলেন ইসলামের সঙ্গে খুব কঠোর আচরণ করবেন। কিন্তু এর ফল হয়েছে সম্পূর্ণ বিপরীত’।

ড্যানিয়েল বলেন, ‘মহান ধর্ম ইসলামের একটি অনন্য বৈশিষ্ট্য হ’ল, যারাই এর মোকাবেলা করতে চায় তাদেরকে এই পবিত্র ধর্ম চিন্তা-ভাবনা ও গবেষণার মাধ্যমে এ সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেয়ার আহবান জানায়। ফলে ইসলামের খুঁত বের করার চেষ্টা করতে গিয়ে তারা এ যে খাঁটি আল্লাহ প্রদত্ত ধর্ম. তা বাস্তবতা বুঝতে পারে। কারণ ইসলাম মানুষের প্রকৃতির চাহিদার আলোকে প্রণীত হয়েছে। সত্য অনুসন্ধানের ইচ্ছা নিয়ে যারাই ইসলাম সম্পর্কে গবেষণা করেন তারা এই আসমানী ধর্মের সত্যতা অস্বীকার করতে পারেন না।

বিশিষ্ট ইংরেজ গবেষক জন ডেভেনপোর্ট বলেছেন, ‘কুরআন ভুল-ত্রুটিমুক্ত হওয়ায় এতে কোন ছোটখাট সংশোধনেরও দরকার নেই। তাই প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত কুরআন পড়ার পরও সামান্যতম বিরক্তিও সৃষ্টি হবে না কারো মধ্যে। বছরের পর বছর ধরে পাদ্রীরা আমাদেরকে পবিত্র কুরআনের বাস্তবতা ও মহত্ত্ব থেকে দূরে রেখেছেন। কিন্তু আমরা যতই জ্ঞানের পথে এগুচ্ছি ততই অজ্ঞতা ও অযৌক্তিক গোঁড়ামির পর্দা মুছে যাচ্ছে। শিগগিরই এ মহাগ্রন্থ, যার প্রশংসা ভাষায় প্রকাশ করার সাধ্য কারো নেই। বিশ্বকে নিজের দিকে আকৃষ্ট করবে এবং বিশ্বের উপর গভীর প্রভাব ফেলবে ও শেষ পর্যন্ত বিশ্বের মানুষের চিন্তা-চেতনার প্রধান অক্ষে পরিণত হবে’।

কোপা দেল রে থেকে রিয়ালের বিদায়…।

বুধবার রাতে সান্তিয়াগো বের্নাবেউয়ে কোয়ার্টার-ফাইনালের ফিরতি লেগে ২-১ গোলে হেরে গেছে রিয়াল। প্রথম লেগে ১-০ গোলে জিতেছিল তারা। দুই লেগ মিলিয়ে স্কোরলাইন ২-২ হলেও অ্যাওয়ে গোলে পিছিয়ে থেকে বিদায় নিল মাদ্রিদের ক্লাবটি।

এই নিয়ে কোপা দেল রেতে নিজেদের মাঠে শেষ চার ম্যাচে জয়হীন থাকলো জিনেদিন জিদানের দল। তিন দিন আগে দেপোর্তিভো লা করুনার বিপক্ষে বিশাল ব্যবধানে জয়ের ম্যাচের শুরুর একাদশের অনেককে বাইরে রেখে দল সাজানো রিয়াল তৃতীয় মিনিটেই গোল খেতে বসেছিল। তবে ফরোয়ার্ড ক্লাওদির ফ্রি-কিক পোস্টে লাগলে সে যাত্রায় বেঁচে যায় দলটি।

তবে বেশিক্ষণ জাল অক্ষত রাখতে পারেনি তারা। শুরু থেকে দারুণ খেলতে থাকা লেগানেস ৩১তম মিনিটে এগিয়ে যায়। এক ডিফেন্ডারের ভুলে বল পেয়ে কিছুটা এগিয়ে প্রায় ২৫ গজ দূর থেকে চমৎকার বাঁকানো শটে দলকে এগিয়ে দেন স্প্যানিশ মিডফিল্ডার হাভিয়ের এরাসো।

ছয় মিনিট পর ইসকোর ক্রস গোল করার মতো পজিশনে পেয়ে বলে মাথা ছোঁয়াতে ব্যর্থ হন করিম বেনজেমা। আর বিরতির ঠিক আগে ক্লাওদির দারুণ একটি বাই-সাইকেল কিক একটুর জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।
প্রথমার্ধ শেষে মাঠ ছাড়ার সময় সমর্থকদের দুয়ো শোনা রিয়াল দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই সমতায় ফেরে। ৪৭তম মিনিটে লুকাস ভাসকেসকে বল বাড়িয়ে দ্রুত ডি-বক্সে ঢুকে ফিরতি পাস পেয়ে দুরূহ কোণ থেকে গোলরক্ষকের উপর দিয়ে লক্ষ্যভেদ করেন সমালোচনার মুখে থাকা বেনজেমা।

Real Madrid's French forward Karim Benzema.

৫১তম মিনিটে গোলমুখে ফাঁকায় বল পেয়ে লক্ষ্যভ্রষ্ট শট নেন গ্রিক ডিফেন্ডার দিমিত্রিস সিয়োভাস। চার মিনিট পর আবারও স্তব্ধ হয়ে যায় বের্নাবেউ; এরাসোর কর্নারে ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার গাব্রিয়েলের দারুণ হেডে ফের এগিয়ে যায় লেগানেস।

৬৯তম মিনিটে একসঙ্গে দুটি পরিবর্তন আনেন জিদান। লুকা মদ্রিচ ও দানি কারভাহালকে মাঠে নামান। শেষ দিকে ভালো দুটি সুযোগও পেয়েছিল তারা। কিন্তু কাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা আর মেলেনি। স্প্যানিশ ফুটবলের দ্বিতীয় সেরা এই প্রতিযোগিতার গত আসরেও কোয়ার্টার-ফাইনাল থেকে ছিটকে পড়েছিল তৃতীয় সর্বোচ্চ ১৯ বারের চ্যাম্পিয়নরা।

Real Madrid's Marco Asensio.

তাদের আচরণ দেখলে গাধার কথা মনে পড়ে

সুশীল সমাজের কঠোর সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা বলেছেন, উন্নয়নের গতিধারায় দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। সারা বিশ্ব বাংলাদেশের স্বীকৃতি দিচ্ছে। কিন্তু এ দেশের কিছু মানুষ উন্নয়নটা চোখে দেখে না। তাদের আচরণ দেখলে গাধার কথা মনে পড়ে।

জাতীয় সংসদে আজ বুধবার প্রশ্নোত্তর পর্বে প্রধানমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন। স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরু হওয়ার পর প্রধানমন্ত্রীর জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্ব অনুষ্ঠিত হয়।

সংরক্ষিত আসনের সাংসদ ফজিলাতুন্নেসার সম্পূরক প্রশ্নে বলেন, কিছু সুশীল ও পণ্ডিতজন সংবাদ সম্মেলন করে বলছেন, দেশের অর্থনৈতিক কোনো অগ্রগতি দেখতে পারছেন না। উন্নয়নের ছোঁয়া দেখতে পারছেন না। এ বিষয়ে তিনি প্রধানমন্ত্রীর মত জানতে চান।

জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, যারা চোখ থাকতে অন্ধ, কান থাকতে বধির, তাদের হাজার বলেও দেখানো, শোনানো যাবে না। তাদের বোঝানোর কিছু নেই। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বলা হচ্ছে সুশীল। আমি জানি না, এই সুশীলের অর্থটা কী, ব্যাখ্যাটা কী। কোন তত্ত্বের ভিত্তিতে তারা সুশীল। সেটাই প্রশ্ন হয়ে দেখা দেয়, যখন তারা কোনো কিছু দেখেনও না, শোনেনও না, বোঝেনও না। তারা সুশীল না অসুশীল তা আমি জানি না।’

সার্কাসের গাধার গল্প সংসদে শুনিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সুন্দরী মেয়েকে বিয়ে করার আশায় গাধা দড়ি ছেঁড়ার অপেক্ষায় বসে থাকে। ওই শ্রেণিটা গাধার মতো দড়ি ছেঁড়ার অপেক্ষায় বসে থাকে।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি কাউকে গাধা বলছি না। তারা জ্ঞানী-গুণী, শিক্ষিত। বিদেশ থেকে উচ্চ ডিগ্রিপ্রাপ্ত। আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন। তবে, তাদের আচরণগুলো যখন দেখি, খুব স্বাভাবিকভাবেই গাধার কথা মনে পড়ে।’ শেখ হাসিনা বলেন, কিছু মানুষ সব সময় নিজেদের অশুভ শক্তির কাছে বিক্রি করতে প্রস্তুত থাকে। রাস্তার পাশে ডাস্টবিনে লেখা থাকে ‘ইউজ মি’। তেমনি তারাও রাজনীতি ও ক্ষমতার ক্ষেত্রে বুকে সাইন বোর্ড লিখে বসে থাকে—‘ইউজ মি’। তারা সব সময় আশায় বসে থাকে, কেউ অসাংবিধানিক পথে ক্ষমতা দখল করলে একটি পতাকা পাবে। ক্ষমতায় যেতে পারবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাদের এই না দেখাটা একধরনের অসুস্থতা। কারণ, তাদের দৃষ্টি অবৈধ ক্ষমতা দখলের দিকে। তাদের আকাঙ্ক্ষা ক্ষমতায় যাওয়ার। কিন্তু তারা জনগণের কাছে যেতে পারেন না। ভোটের রাজনীতিতে তারা অচল। এই শ্রেণি ক্ষমতায় যেতে বাঁকা পথ খোঁজে।

বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সাংসদ ফখরুল ইমাম সম্পূরক প্রশ্নে জানতে চান, প্রধানমন্ত্রী একাই অর্জন করে যাবেন, নাকি সবাইকে সঙ্গে নিয়ে যাবেন। জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তিনি সবাইকে নিয়ে চলতে চান। তবে কথা আছে, ‘যদি তোর ডাক শুনে কেউ না আসে, তবে একলা চলো রে…।’

সরকারের অর্জনগুলোকে সম্মিলিত প্রয়াসের ফল উল্লেখ শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিরোধী দলকে ধন্যবাদ জানাই। তারা গঠনমূলক বক্তব্য রেখেছে। গঠনমূলক আচরণ করেছে। অন্তত এইটুকু বলতে পারি, বিএনপি থাকতে তখন যে খিস্তিখেউড় হতো, যেসব আলাপ-আলোচনা হতো তা কান পেতে শোনা যেত না। এখন সেসব নেই। অত্যন্ত গণতান্ত্রিক মনোভাব নিয়ে বিরোধী দল গঠনমূলক আলোচনা করছে এবং সর্বক্ষেত্রে সহযোগিতা করছে।’

ফজরের সময় জাগ্রত হওয়ার কার্যকরী কৌশল…

মুসলমানদের জন্য ঈমান আনার পরেই পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের প্রতি সর্বাধিক গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। আর জামাতে নামাজ পড়া সুন্নতে মুয়াক্কাদা।

পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের মধ্যে মধ্যে এশা ও ফজরের জামাতের গুরুত্ব সবচেয়ে বেশি।

এ দুই সময়ে মানুষ সাধারণত পরিবারের সঙ্গে সময় কাটায় ও বিশ্রাম করে। ফলে জামাতদুটিতে যথেষ্ট অবহেলা ও গাফিলতি হয়ে থাকে। এজন্য হাদিসে এর প্রতি বিশেষভাবে উৎসাহিত ও অনুপ্রাণিত করা হয়েছে। উবাই ইবনে কাব (রা.) থেকে বর্ণিত, ‘একবার মহানবী (সা.) আমাদের ফজরের নামাজ পড়িয়েছেন। সালাম ফিরিয়ে জিজ্ঞেস করেছেন, অমুক কি আছে? লোকেরা বলল, নেই। তারপর আরেকজনের নাম নিয়ে জিজ্ঞেস করেন, অমুক কি আছে? লোকেরা বলল, নেই। তিনি বললেন, এ দুই নামাজ (এশা ও ফজর) মুনাফিকদের জন্য সবচেয়ে কঠিন। তোমরা যদি জানতে যে এই দুই নামাজে কী পরিমাণ সওয়াব নিহিত রয়েছে, তাহলে হামাগুড়ি দিয়ে হলেও তাতে আসতে। ’ (আবু দাউদ, হাদিস : ৫৫৪)

ফজরের সময় জাগ্রত এর ছবি ফলাফল

সুন্নত নামাজের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে ফজরের দুই রাকাত সুন্নত। হাদিসে এর প্রভূত ফজিলত বর্ণিত হয়েছে, যা অন্য সুন্নতের ক্ষেত্রে হয়নি। এক হাদিসে এসেছে, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘ফজরের দুই রাকাত (সুন্নত) দুনিয়া ও দুনিয়ার মধ্যে যা কিছু আছে তার চেয়ে উত্তম। ’ (মুসলিম, হাদিস : ৭২৫)

আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, মহানবী (সা.) বলেছেন, ‘শত্রুবাহিনী তোমাদের তাড়া করলেও তোমরা এই দুই রাকাত কখনো ত্যাগ কোরো না। ’ (আবু দাউদ, হাদিস : ১২৫৮)

সম্পর্কিত ছবি

কিন্তু আফসোসের বিষয় হলো, বহু মুসলমান নামাজই পড়ে না। আর যারা নামাজি, তাঁদের মধ্যে অনেকে ফজরের নামাজ নিয়মিত পড়তে পারেন না। যারা নিয়মিত পড়েন, তাঁদের মধ্যেও অনেকে ফজরের জামাতে শরিক হতে পারেন না। অলসতা ছাড়াও এর অন্যতম কারণ যথা সময়ে ঘুম থেকে জাগ্রত হতে না পারা। এখানে আমরা ফজরের সময় জাগ্রত হওয়ার কিছু কৌশল তুলে ধরার চেষ্টা করেছি।

আল্লাহকে চেনা :

ফজরের নামাজের জন্য জেগে উঠার প্রধান কৌশল হলো আল্লাহর বড়ত্ব ও মহত্ত্ব সম্পর্কে জানা। আপনি যদি জানেন আপনি কার ইবাদত করছেন, আর এ-ও জানেন যে তাঁর নির্দেশ হলো, আপনি প্রতিদিন ভোরে ঘুম থেকে উঠে তাঁর ইবাদত করুন, তাহলে আপনি জেগে উঠবেনই!

আন্তরিকতা :

ফজরের নামাজের জন্য জেগে উঠার ব্যাপারে আন্তরিক হোন। এটা ভাববেন না যে যদি আমি ফজরের ওয়াক্তে উঠতে পারি তাহলে ফজরের নামাজ পড়ব, বরং আন্তরিকভাবে প্রতিজ্ঞা করুন যে আমি ফজরের ওয়াক্তে জেগে উঠবোই, ইনশাআল্লাহ!

ঘুমাতে যাওয়ার আগে ওজু করা :

মহানবী (সা.) বারা ইবনে আজেব (রা.)-কে বলেছিলেন, যখন তুমি বিছানায় যাবে তখন নামাজের ওজুর মতো ওজু করবে। ’ (মুসলিম, হাদিস : ৪৮৮৪)

বিতরের নামাজের পর দোয়া :

শেষ রাতে উঠার অভ্যাস না থাকলে বিতরের নামাজ আদায় না করে ঘুমাবেন না। আর বিতরের নামাজ আদায়ের সময় আল্লাহর কাছে অনুনয়-বিনয় করুন, যাতে তিনি আপনাকে ঘুম থেকে জেগে উঠতে সাহায্য করেন।

কোরআন পাঠ করে নিদ্রায় যাওয়া :

মহাগ্রন্থ আল-কোরআনের মাধ্যমে দিনের সমাপ্তি অবশ্যই আপনার মনোযোগকে ফজরের নামাজের জন্য জেগে উঠার দিকে নিবদ্ধ করবে। মহানবী (সা.) ঘুমাতে যাওয়ার আগে সুরা সাজদাহ ও সুরা মুলক (৩২ ও ৬৭ নম্বর সুরা) পাঠ করার পরামর্শ দিয়েছেন।

ঘোষণাকৃত পুরস্কারের কথা স্মরণ :

মুনাফেক হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ার হাত থেকে বেঁচে থাকা, শেষ বিচারের দিন আলোকিত হওয়া, সারাদিন আল্লাহর নিরাপত্তায় থাকা, জীবন থেকে অলসতা কেটে যাওয়া, কর্মঠ হওয়া ইত্যাদি পুরস্কারগুলোর কথা স্মরণ করুন, ইনশাআল্লাহ আপনি জেগে উঠতে পারবেন।

জাগিয়ে দেওয়ার জন্য বন্ধু বা পরিবারের সদস্যদের বলা :

পরিবারের অন্য সদস্য কিংবা বন্ধুদের বলুন আপনাকে জাগিয়ে দিতে। আর পরস্পরকে সাহায্য করুন। যদি আপনি আগে জেগে উঠেন, তাহলে অন্যদেরও জাগিয়ে তুলুন।

দুপুরে ভাত খেয়ে সামান্য ঘুম :

আরেকটি কৌশল জানা যায় সুন্নাহ থেকে। আর তা হলো, দুপুরে খাওয়া-দাওয়ার পর সামান্য ঘুমানো। আরবিতে এটাকে ‘কায়লুলা’ বলা হয়। এই সামান্য বিশ্রামের ফলে রাতের দীর্ঘ ঘুম থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে। পাশাপাশি এই সামান্য ঘুম আপনাকে করে তুলবে উজ্জীবিত। মস্তিস্ককে করে তুলবে সতেজ। ফলে অলসতার ঘোর কেটে যাবে।

গুহায় আঁটকে পড়া সেই ঐতিহাসিক তিন যুবক ……ইসলামিক গল্প…

একবার তিনজন লোক পথ চলছিল,
এমন সময় তারা বৃষ্টিতে আক্রান্ত
হ’ল। অতঃপর তারা এক পাহাড়ের
গুহায় আশ্রয় নিল। হঠাৎ পাহাড় হ’তে
এক খন্ড পাথর পড়ে তাদের গুহার
মুখ বন্ধ হয়ে গেল। তখন তারা একে
অপরকে বলল, নিজেদের কৃত কিছু
সৎকাজের কথা চিন্তা করে বের কর,
যা আললাহর সন্তুষ্টির জন্য
তোমরা করেছ এবং তার মাধ্যমে
আললাহর নিকট দো‘আ কর। তাহ’লে
হয়ত আল্লাহ্ তোমাদের উপর হ’তে
পাথরটি সরিয়ে দিবেন।
তাদের একজন বলতে লাগল, হে
আল্লাহ্! আমার আববা-আম্মা খুব
বৃদ্ধ ছিলেন এবং আমার ছোট ছোট
সন্তানও ছিল। আমি তাদের ভরণ-
পোষণের জন্য পশু পালন করতাম।
সন্ধ্যায় যখন আমি বাড়ি ফিরতাম
তখন দুধ দোহন করতাম এবং আমার
সন্তান্দের আগে আমার আববা-
আম্মাকে পান করাতাম। একদিন
আমার ফিরতে দেরী হয় এবং সন্ধ্যা
হওয়ার আগে আসতে পারলাম না।
এসে দেখি তারা ঘুমিয়ে পড়েছেন।
আমি দুধ দোহন করলাম, যেমন
প্রতিদিন দোহন করি। তারপর আমি
তাঁদের শিয়রে (দুধ নিয়ে) দাঁড়িয়ে
রইলাম। তাদেরকে জাগানো আমি
পছন্দ করিনি এবং তাদের আগে
আমার বাচ্চাদেরকে পান করানোও
সঙ্গত মনে করিনি। অথচ বাচ্চাগুলো
দুধের জন্য আমার পায়ের কাছে পড়ে
কান্নাকাটি করছিল। এভাবে ভোর
হয়ে গেল। হে আল্লাহ্! আপনি
জানেন আমি যদি শুধু আপনার
সন্তুষ্টির জন্যই এ কাজটি করে
থাকি তবে আপনি আমাদের হ’তে
পাথরটা খানিক সরিয়ে দিন, যাতে
আমরা আসমানটা দেখতে পাই। তখন
আল্লাহ পাথরটাকে একটু সরিয়ে
দিলেন এবং তারা আসমান দেখতে
পেল।

allah is on এর ছবি ফলাফল


দ্বিতীয় ব্যক্তি বলল, হে আল্লাহ্!
আমার এক চাচাতো বোন ছিল।
পুরুষরা যেমন মহিলাদেরকে
ভালবাসে,আমি তাকে তার চেয়েও
অধিক ভালবাসতাম। একদিন আমি
তার কাছে চেয়ে বসলাম (অর্থাৎ
খারাপ কাজ করতে চাইলাম)। কিন্তু
তা সে অস্বীকার করল যে পর্যন্ত
না আমি তার জন্য একশ’ দিনার নিয়ে
আসি। পরে চেষ্টা করে আমি তা
যোগাড় করলাম (এবং তার কাছে
এলাম)। যখন আমি তার দু’পায়ের
মাঝে বসলাম (অর্থাৎ সম্ভোগ
করতে তৈরী হলাম) তখন সে বলল, হে
আললাহর বান্দা! আল্লাহকে ভয়
কর। অন্যায়ভাবে মোহর (পর্দা)
ছিঁড়ে দিয়ো না। (অর্থাৎ আমার
সতীত্ব নষ্ট করো না)। তখন আমি
দাঁড়িয়ে গেলাম। হে আল্লাহ! আপনি
জানেন আমি যদি শুধু আপনার
সন্তুষ্টির জন্য এ কাজটি করে
থাকি, তবে আপনি আমাদের জন্য
পাথরটা সরিয়ে দিন। তখন পাথরটা
কিছুটা সরে গেল।

allah is on এর ছবি ফলাফল


তৃতীয় ব্যক্তি বলল, হে আল্লাহ্!
আমি এক ‘ফারাক’ চাউলের বিনিময়ে
একজন শ্রমিক নিযুক্ত করেছিলাম।
যখন সে তার কাজ শেষ করল
আমাকে বলল, আমার পাওনা দিয়ে
দাও। আমি তাকে তার পাওনা দিতে
গেলে সে তা নিল না। আমি তা দিয়ে
কৃষি কাজ করতে লাগলাম এবং এর
দ্বারা অনেক গরু ও তার রাখাল জমা
করলাম। বেশ কিছু দিন পর সে আমার
কাছে আসল এবং বলল, আল্লাহকে
ভয় কর (আমার মজুরী দাও)। আমি
বললাম, এই সব গরু ও রাখাল নিয়ে
নাও। সে বলল, আল্লাহকে ভয় কর,
আমার সাথে ঠাট্টা কর না। আমি
বললাম, আমি তোমার সাথে ঠাট্টা
করছি না, ঐগুলো নিয়ে নাও। তখন
সে তা নিয়ে গেল। হে আল্লাহ!
আপনি জানেন, যদি আমি আপনার
সন্তুষ্টি লাভের জন্য এ কাজটি করে
থাকি, তবে পাথরের বাকীটুকু সরিয়ে
দিন। তখন আল্লাহ পাথরটাকে
সরিয়ে দিলেন।
(বুখারী হা/২৩৩৩, ‘চাষাবাদ’ অধ্যায়,
অনুচেছদ-১৩; মুসলিম হা/২৭৪৩,
মিশকাত হা/৪৯৩৮)। #আমিন

”ক্রিস্টাল অ্যাওয়ার্ড’’ পেয়েছেন শাহরুখ খান।

বিশ্ব অর্থনীতি ফোরাম সম্মেলনে ‘ক্রিস্টাল অ্যাওয়ার্ড’ পেয়েছেন শাহরুখ খান।
অভিনয়ের জন্য অনেক পুরস্কার পেয়েছেন বলিউড তারকা শাহরুখ খান। কিন্তু অভিনয় আর চলচ্চিত্র প্রযোজনার পাশাপাশি এই চিত্রনায়ক জড়িত আছেন মানবসেবার সঙ্গে।

বলিউডের ‘কিং খান’ হওয়ার আগে তাঁকে আর্থিক টানাপোড়েনের মধ্যে দিন কাটাতে হয়েছে। তাই দারিদ্র্যের যন্ত্রণা ভালোই অনুভব করতে পারেন তিনি।

এ জন্য শাহরুখ সব সময় সুবিধাবঞ্চিত মানুষের সেবা করার চেষ্টা করেন। সম্প্রতি মানবসেবায় অবদানের জন্য ২০১৮ সালের বিশ্ব অর্থনীতি ফোরাম সম্মেলনে ‘ক্রিস্টাল অ্যাওয়ার্ড’ পেয়েছেন শাহরুখ খান।

গতকাল সোমবার এই পুরস্কার পাওয়ার পর টুইটারে শাহরুখ লিখেছেন, ‘২৪তম ক্রিস্টাল অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ করতে পেরে আমি সম্মানিত।’

এবার শাহরুখের সঙ্গে এই আয়োজনে আরও সম্মানিত হয়েছেন ব্রিটিশ গায়ক এলটন জন ও অস্ট্রেলিয়ার অভিনেত্রী কেট ব্ল্যানচেট।

ভারতে নারী ও শিশুদের অধিকার আদায়ের ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য শাহরুখ খানকে এই পুরস্কার দেওয়া হয়।

‘মীর ফাউন্ডেশন’ নামে শাহরুখ খানের একটি দাতব্য প্রতিষ্ঠান রয়েছে। অ্যাসিড হামলার শিকার এবং যেকোনো কারণে পুড়ে যাওয়া নারীদের নিয়ে কাজ করে প্রতিষ্ঠানটি। আহত সেসব নারীর চিকিৎসা, আইনি সহায়তা, কারিগরি শিক্ষা প্রদান, পুনর্বাসন ও উদ্দীপ্ত করার জন্য নানা পরামর্শ দেওয়া হয়।

এ ছাড়া শাহরুখ খান ভারতে ক্যানসার আক্রান্ত শিশুদের জন্য হাসপাতালে বিশেষায়িত ওয়ার্ড নির্মাণ ও তাদের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করেন।
পুরস্কার গ্রহণ করার সময় শাহরুখ তাঁর বোন শেহনাজ লালারুখ খান, স্ত্রী গৌরী খান ও মেয়ে সুহানা খানকে বিশেষ ধন্যবাদ জানান।

কারণ, জীবনের এই তিন নারীই নাকি শাহরুখের জীবনের দৃষ্টিভঙ্গি পালটে দিয়েছেন। এত উত্তেজনার মধ্যেও মঞ্চে প্রিয় তারকা এলটন জনের সঙ্গে সেলফি তুলতেও ভোলেননি শাহরুখ। এর আগে ভারত থেকে অমিতাভ বচ্চন, শাবানা আজমী, এ আর রাহমান, মল্লিকা সারাভাই, রবি শংকর ও আমজাদ আলী খান এই পুরস্কার পেয়েছিলেন।

কুকুর পোষা বৈধ হবে কিনা..? জেনে নিন ইসলামে কি বলে…??

আমাদের নবী (সা.) কুকুর প্রীতির বিষয়ে কঠোর হুশিয়ারি দিয়ে প্রথমে কুকুরকে হত্যা করার নির্দেশ দেন এর পরে বলেন যে ঘরে কুকুরের বা অন্য কোন প্রাণীর মূতি থাকবে সেখানে রহমতের ফেরেশতা প্রবেশ করবে না।

আমাদের আশেপাশে অনেকেই এখন শখ করে বাড়িতে বিদেশী কুকুর পোষে এবং তার জন্য অনেক অর্থও খরজ করে। কেউ কেউ আবার ঘর সাজানোর জন্য বিভিন্ন প্রণীর মূতি ও ছবি রাখে।

আমার জানার বিষয় হচ্ছে শরীআতের দৃষ্টিতে এসবের হুকুম কী?

আমাদের দেশে ধনীদের কুকুর প্রীতি মূলত পশ্চিমা সভ্যতা থেকে আমদানি হয়েছে। আমাদের নবী সা.) এর আবির্ভাব হওয়ার পূর্বে আরবদের মাঝেও কুকুর প্রীতির সভ্যতা ছিলো।

কিন্তু আমাদের নবী (সা.) কুকুর প্রীতির বিষয়ে কঠোর হুশিয়ারি দিয়ে প্রথমে কুকুরকে হত্যা করার নির্দেশ দেন এর পরে বলেন যে ঘরে কুকুরের বা অন্য কোন প্রাণীর মূতি থাকবে সেখানে রহমতের ফেরেশতা প্রবেশ করবে না।

সুতরাং বোঝায় যাচ্ছে কুকুর পালন কারা ও কুকুরের প্রতি ভালোবাসা পোষণ করা কতটা জঘন্য। ঘর বা বাড়ি যদি সাজাতেই হয় তাহলে ফুর, ঝর্ণা, গাছ পালা ইত্যাদি দিয়ে সাজাতে তো কোন প্রকার মানা নেই। [ফাতাওয়ায়ে মাহমূদিয়া-৫ঃ ১৮৮ পৃঃ]