অপহরণ হল মেয়ে বাবার সামনে থেকেই !! (ভিডিও)

সম্প্রতি ভারতের মুম্বাইতে এমন ঘটনা ঘটেছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম মিরর মঙ্গলবার এক প্রতিবেদনে জানায়, ভিডিও ফুটেজে শিরিন ফাতেমা নামের ওই শিশুকে স্পষ্টই চুরি যেতে দেখা যায়।

ফাতেমা খেলার ফাঁকে দোকানের বাইরে আসতেই পথচারি এক যুবক তাকে কোলে করে নিয়ে যায়। পুলিশ অবশ্য অভিযোগ পাওয়ার ৬ ঘণ্টার মধ্যেই ফাতেমাকে উদ্ধার করে। শিশুটিকে চুরি করার অভিযোগে সন্দীপ পারব নামের ওই যুবককেও আটক করা হয়েছে।

অবশ্য ওই যুবক কেন ফাতেমাকে নিয়ে গিয়েছিল তা পরিষ্কার নয়। সন্দীপের বিরুদ্ধে কি ধরনের অভিযোগ তোলা হবে সে সম্পর্কেও কিছু জানা যায়নি।

ভিডিওটি দেখুন…

রঙ্গিন ও ডিজাইন করা বোরকা পরিধান কি বৈধ ?? ইসলাম কি বলে !!

প্রশ্ন : শ্রদ্ধেয় মুফতি সাহেব, আমার একটি বোরকা কাপড়ের দোকান আছে। আমি বিভিন্ন ধরণের বোরকা বিক্রি করি। বোরকার বিভিন্ন ডিজাইন রয়েছে। বিভিন্ন রংয়ের হিজাব রয়েছে। অনেক কারুকার্য করা বোরকা। আমার প্রশ্ন হলো, এসব বোরকা পরিধান করার হুকুম কী? আর আমি যে ডিজাইন করা রঙ্গিন বোরকার ব্যবসা করি, এতে কি আমি গোনাহাগার হবো?

উত্তর : بسم الله الرحمن الرحيم

বোরকার দ্বারা উদ্দেশ্য হলো, মাথা থেকে পা পর্যন্ত ঢেকে দেওয়া, যাতে করে পরপুরুষের দৃষ্টি শরীরে না পড়ে। উপরোক্ত উদ্দেশ্য শরীর ঢেকে দেয়, এমন প্রতিটি বোরকা দ্বারাই অর্জিত হয়ে যায়।

তবে খেয়াল রাখতে হবে, যেনো বোরকা এমন না হয়, যার ওপরের অংশই পুরুষদের আকর্ষিত করে। এ হিসেবে কালো বোরকা পরিধান করাই সর্বোত্তম।

যদি পরপুরুষকে আকৃষ্ট করার জন্য ডিজাইন করা বোরকা পরিধান করা হয়, তাহলে খারাপ নিয়তের কারণে ওই নারী গোনাহগার হবে। কিন্তু এ কারণে এসব বিক্রিকারীর ওপর গোনাহ অর্পিত হবে না। তাই সব ধরনের বোরকা বিক্রি করা যাবে।

أَنَّ عَائِشَةَ، قَالَتْ: لَقَدْ «كَانَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يُصَلِّي الفَجْرَ، فَيَشْهَدُ مَعَهُ نِسَاءٌ مِنَ المُؤْمِنَاتِ مُتَلَفِّعَاتٍ فِي مُرُوطِهِنَّ، ثُمَّ يَرْجِعْنَ إِلَى بُيُوتِهِنَّ مَا يَعْرِفُهُنَّ أَحَدٌ

অর্থ আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ফজরের সালাত আদায় করতেন আর তাঁর সঙ্গে অনেক মুমিন নারী চাদর দিয়ে গা ঢেকে শরীক হতো। অতঃপর তারা নিজ নিজ ঘরে ফিরে যেতো। আর তাদের কেউ চিনতে পারতো না । (সহিহ বুখারি, হাদিস নম্বর ৩৭২)

أن النساء ايضا مأمورات بغض البصر عن الرجال الأجانب كما ان الرجل مأمورون بغض البصر من النساء الأجنبيات (احكام القرآن للتهانوى-3/43)

وإنما تحصل المعصية بفعل فاعل مختار (رد المحتار-9/562)

وان قامت المعصية بعينه يكره بيعه تحريما والا فتنزيها (رد المحتار-9/561

والله اعلم بالصواب

উত্তর লিখনে : লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

২ মাসের জন্য মাঠের বাহিরে নেইমার !! নেইমারহীন বিশ্বকাপ খেলবে ব্রাজিল ??

সোমবার ব্রিটিশ টেলিভিশন চ্যালেন স্কাই স্পোর্টস জানায়, রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে নেইমারকে ছাড়াই খেলতে হবে পিএসজিকে। এর একদিন পরই স্প্যানিশ ক্রীড়া দৈনিক মার্কা জানাচ্ছে, নেইমার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি অস্ত্রোপচার করাবেন। যার ফলে তিনি দুই মাসের জন্য মাঠে বাইরে চলে যাচ্ছেন এটা একরকম নিশ্চিত।

অস্ত্রোপচারের খবরের পর নেইমারের দেশ ব্রাজিলের গণমাধ্যম গ্লোবো স্পোর্টস জানাচ্ছে, শল্যবিদের ছুরি-কাঁচির নিচে যাওয়ার পর ঠিকমত সেরে না উঠলে বিশ্বকাপেও অনিশ্চিত হয়ে যেতে পারেন তিনি। চোটের ধরণ বলছে, পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় সময় বেশিও লেগে যেতে পারে নেইমারের।

গ্লোবোর প্রতিবেদন জানাচ্ছে, ৬ মার্চ রিয়ালের বিপক্ষে খেলতেই পারবেন না নেইমার। এমনকি মে’র আগে মাঠেই ফিরতে পারবেন না। যেটা বিশ্বকাপ ‍শুরুর মাত্র একমাস আগের সময়। ওই একমাসে নেইমারের ভাগ্য নির্ধারিত হবে রাশিয়া যাত্রার জন্য।

গত রোববার ঘরের মাঠে মার্সেইকে ৩-০ গোলে হারানোর ম্যাচে গোড়ালিতে মারাত্মক আঘাত পান নেইমার। ম্যাচের ৭৭তম মিনিটে বউনা সারের কাছ থেকে বল নেয়ার সময় গোড়ালিতে বুটের আঘাত লাগে। প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর স্ট্রেচারে করে বাইরে নিতে হয় ব্রাজিল তারকাকে।

মানুষের কামড়ে বিষধর সাপের মৃত্যু…!! অবাক করা কাণ্ড ।।

সাপের কামড়ে মানুষের মৃত্যুর ঘটনা নতুন নয়। তবে মানুষের কামড়ে সাপের মৃত্যুর ঘটনা কখনো শুনেছেন কি? এমনই অবাক করার মতো ঘটনা ঘটেছে ভারতের মধ্য প্রদেশের মরিনা জেলার সাবালপুর টেহসিলের পাছের গ্রামে।

ওই গ্রামের জালিম সিং কুশওহা নামের এক ব্যক্তি গত শনিবার নিজের খামারে কালো রঙের একটি সাপ দেখতে পান। তখন জালিম কিছুটা মাতাল অবস্থায় ছিলেন। তিনি সাপ ধরে কামড়ে দেন। এর কিছুক্ষণ পরই সাপটি মারা যায় আর জালিম জ্ঞান হারান।

পরে গ্রামবাসী অচেতন অবস্থায় কুশওহাকে হাসপাতালে নিয়ে যান।

হাসপাতালের চিকিৎসক রগভিন্দ্র যাদব বলেন, সাপটিকে কামড়ানোর পর ভয়ে ও আতঙ্কে অজ্ঞান হয়ে যান জালিম। আর সাপটি খুব বিষধর ছিল। যদি বিষ তাঁর রক্তে প্রবেশ করত, তা কুশওহার জন্য মারাত্মক হতে পারত।

তবে কুশওহা সুস্থ আছেন। প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেওয়ার পর তাঁকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

এর আগে ভারতের উত্তর প্রদেশের এক ব্যক্তি প্রতিশোধপরায়ণ হয়ে এক বিষধর সাপের মাথায় কামড় দেন। এতে সাপটি মারা যায়।

ইসলাম কি বলে ?? ইউটিউবের মাধ্যমে অর্জিত অর্থ কি হালাল ??

প্রশ্ন : ইউটিউবে ভিডিও আপলোডের মাধ্যমে টাকা আয় করা যাবে কি?

জবাব : প্রথমে জানতে হবে, ইউটিউব এ ভিডিও আপলোডের মাধ্যমে যে টাকা আয় করা হয় তার সোর্স কী, কেন আমাকে গুগল টাকা দিচ্ছে!

গুগলের একটি বিশেষ সার্ভিস–গুগল এডসেন্স। এর মাধ্যমে তারা বিভিন্ন কম্পানির বিজ্ঞাপন অর্থের বিনিময়ে ইউটিউবসহ বিভিন্ন ওয়েবসাইটে সম্প্রচার করে। আর ওখান থেকে একটা নির্ধারিত একটা অংশ তারা ইউটিউবারদের দিয়ে থাকে। সুতরাং বিজ্ঞাপনগুলো যদি অশ্লীল ও হারাম পণ্যের হয়, তাহলে তা থেকে প্রাপ্ত অর্থ হালাল হবে না। বরং, হারাম অর্থ হওয়ার পাশাপাশি হারামের প্রচার ও সহযোগিতা করার গোনাহ হবে। মহান আল্লাহ বলেন, ‘যারা মুমিনদের মধ্যে অশ্লীলতার প্রসার কামনা করে, নিশ্চয়ই তাদের জন্য ইহকালে ও পরকালে রয়েছে যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি’। (সুর নূর, আয়াত : ১৯)

পক্ষান্তরে ‘এডসেন্স’ এ সেনসিটিভ অপশন বন্ধ করার অপশন আছে। যদি কেউ সেটা বন্ধ রেখে অনৈসলামিক-বিজ্ঞাপনগুলো উপেক্ষা করা যায়, তাহলে তা থেকে প্রাপ্ত অর্থ হালাল হবে।

উত্তর দিয়েছেন : মাওলানা উমায়ের কোব্বাদী নকশবন্দী

এক্সট্রা মিনিটের গোলে রিয়ালের নাটকীয় হার ।।

রোনালদো ছাড়া রিয়াল যে কতটা ছন্নছাড়া এই ম্যাচই তার প্রমাণ।

যোগ করা সময়ে নাটকীয়ভাবে ড্র হতে চলা ম্যাচের রং বদলে দেয় এসপানিয়ল। যোগ করা সময়ে মারিনোর একমাত্র গোলে লিগে টানা চার ম্যাচ জেতার পর হারল রিয়াল।

আক্রমণ পাল্টা আক্রমণে ম্যাচ ৯০ মিনিট পার করে। ফলাফল ড্র ধরে নিয়ে অনেকেই তখন টিভি রিমোট হাতে নিয়ে কাচুমুচু করছেন। প্রস্তুতি নিচ্ছেন ঘুমের। তখনই নাটকীয় সেই গোল।

ম্যাচের যোগ হওয়া সময়ের ৩য় মিনিটে রিয়ালের রক্ষণভাগে নিজেকে একা করে নেন এসপানিওল তারকা মরিনো। তাঁর নেওয়া শটে নাটকীয় সমাপ্তি ঘটে। ১–০ গোলের হার নিয়েই মাঠ ছাড়ে লা–লিগার বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদ।

এই হারে শীর্ষে থাকা বার্সার সঙ্গে রিয়ালের ব্যবধান গিয়ে দাঁড়াতে পারে ১৭ পয়েন্টে। বার্সা যদি পরের ম্যাচটা জেতে। আর এসপানিওল পয়েন্ট টেবিলের ১৫ থেকে উঠে ১৩তে জায়গা করে নিল। রিয়ালের এই হার বার্সেলোনা শহর উদ্যাপন করতে পারে যৌথভাবে। আশা খুঁজে নিতে পারে প্যারিসও!

স্ত্রী চুড়ি ও নাকফুল না পরলে স্বামীর আয়ু কমে যায় ? ইসলাম কি বলে !! জেনে নিন !!

আমাদের সমাজে অনেক বিবাহিতা মহিলাকেই শুনতে হয় যে হাতে চুড়ি না পরলে বা নাকে নাকফুল না পরলে স্বামীর আয়ু কমে যায় বা স্বামীর অমঙ্গল হয়। ঠিক যে বিশ্বাস নিয়ে বিধর্মী মহিলারা শাঁখা-সিঁদুর পরে, আজও অনেক মুসলমান মা বোন সেই একই ধরনের কুসংস্কারে বিশ্বাসী হয়ে চুড়ি-নাকফুল পরেন। প্রত্যেকের আয়ু ও ভাগ্য গর্ভে থাকতেই নির্ধারিত হয়ে যায়। কোন অলংকার এই অমোঘ বিধানকে পরিবর্তন করতে পারে না। স্বামীর জন্য নিজেকে সাজাতে অলংকারের ব্যবহার করুন, শিরকে নয়।

“তুমি বল, আমি আমার নিজের ক্ষতি কিংবা লাভেরও মালিক নই, কিন্তু আল্লাহ যা ইচ্ছা করেন।..” [সূরা ইউনুসঃ ৪৯]”

পরিবারের কল্যাণ কামনায় আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করুন ●|●

رَبَّنَا هَبْ لَنَا مِنْ أَزْوَاجِنَا وَذُرِّيَّاتِنَا قُرَّةَ أَعْيُنٍ وَاجْعَلْنَا لِلْمُتَّقِينَ إِمَامًا

‘রব্বানা হাবলানা মিন আযওয়া-জিনা ওয়া যুররিয়াতিনা ওয়া ক্বুররতা আ’ইউনিওয়াজ ‘আলনা লিল মুত্তাক্বীনা ইমা-মা।’

অর্থঃ হে আমাদের পালনকর্তা, আমাদের স্বামী/স্ত্রীদের পক্ষ থেকে এবং আমাদের সন্তানের পক্ষ থেকে আমাদের জন্যে চোখের শীতলতা দান কর এবং আমাদেরকে মুত্তাকীদের জন্যে আদর্শস্বরূপ কর। (সূরা ফুরক্বানঃ৭৪)

আল্লাহ তায়ালা সমস্ত মানুষের হায়াত নির্দিষ্ট করে রেখেছেন। সে সময়ের পূর্বে বা পরে কারো মৃত্যু হবে না। তাই ঐ সমস্ত ভ্রান্ত ধারণা পরিত্যাগ করা অপরিহার্য।

রিয়ালের বিপক্ষে নেইমারের খেলা অনিশ্চিত …।।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের রাউন্ড অব-১৬ এর দ্বিতীয় লেগের ম্যাচে রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে খেলা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে পিএসজি তারকা নেইমারের। বিষয়টি নিশ্চিত করেছে পিএসজি।

লিগ ওয়ানে মার্সেইয়ের বিপক্ষে খেলতে গিয়ে চোট পান নেইমার। ম্যাচ শেষের ১০ মিনিট আগে স্ট্রেচারে করে মাঠ ছাড়েন। ব্যথা গুরুতর ছিল বলে যন্ত্রণায় কুঁকড়ে যাচ্ছিলেন ব্রাজিল তারকা।

জানা গেছে,ডান পায়ে ব্যাথা পাওয়ার পরে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দেখা গেছে, নেইমারের পায়ের পাতার হাড়ে চিড় ধরেছে। এর ফলে নেইমারের ফিরতে আরো কতদিন সময় লাগবে সেটা নিশ্চিত করে জানায়নি পিএসজি। তবে, এ ধরনের ইনজুরি থেকে সেরে উঠতে সাধারণত এক মাস বা তার বেশি সময় লাগে।

পিএসজির ঘরের মাঠে আগামী ৬ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে দ্বিতীয় লেগের ম্যাচ। ওইদিন ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত পৌঁনে দুইটায়।

হিন্দু বা অন্য ধর্মাবলম্বী কেউ সালাম দিলে কী বলতে হয় ?

হিন্দু বা অন্য ধর্মাবলম্বী কেউ সালাম দিলে কী বলতে হয় ?

কোনো হিন্দু বা বিধর্মী সালাম দিলে জবাবে শুধু ‘‘ওয়া আলাইকুম’’ বলবেন। হাদীস শরীফে এসেছে, আনাস ইবনে মালেক রা. বর্ণনা করেন, কয়েকজন সাহাবী আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর নিকট আরয করলেন, আহলে কিতাব আমাদেরকে সালাম দিয়ে থাকে। আমরা তাদেরকে কীভাবে এর উত্তর দিব?তখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, তোমরা ‘‘ওয়া আলাইকুম’’ বলবে।

[সহীহ মুসলিম, হাদীস ২১৬৩; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ৪/৩৩৪; আলবাহরুর রায়েক ৮/২০৪; ফাতাওয়া সিরাজিয়া ৭২; আদ্দুররুল মুখতার ৬/৪১২]

ইসলামে কোন নারী নবী নেই !! জানেন কি কেন ??? জানুন বিস্তারিত।।

ইসলাম ধর্মে এই একটি জিনিসই ব্যতিক্রম যে, এই ধর্মে কোন মহিলা নবীর আগমন ঘটেনি। কিন্তু মহান আল্লাহ তা’য়ালা ঠিক কি কারণে কোন মহিলাকে নবী হিসেবে প্রেরণ করেন নি? পিসটিভি বাংলায় একজন মহিলা এই প্রশ্নটি সরাসরি জাকির নায়েকের কাছে করেন।

উত্তরে ডাক্তার জাকির নায়েক বলেন, যদি নবী বলতে আপনি বোঝেন, এমন এক ব্যক্তি যিনি আল্লাহর পক্ষ থেকে বাণী গ্রহণ করেন এবং যিনি মানবজাতির নেতা হিসেবে কাজ করেন; তাহলে সেই অর্থে নিশ্চিত করে বলতে পারি, ইসলামে কোনো নারী নবী আসেনি এবং এটাই সঠিক। কারণ একজন নারীকে যদি নবী হতে হয় তাহলে তাকে সমগ্র মানুষের নেতৃত্ব দিতে হবে। কিন্তু কুরআনে স্পষ্ট করে বলা হয়েছে পুরুষরা হলো পরিবারের প্রধান। সুতরাং পুরুষ যদি পরিবারের প্রধান হয়ে থাকে তবে কিভাবে নারী সমগ্র মানুষের নেতৃত্ব দেবে? এছাড়াও একজন নবীকে নামাজের ইমামতি করতে হয়। আর আপনারা জানেন, নামাজে বেশ কিছু অঙ্গভঙ্গি রয়েছে যেমন- কিয়াম, রুকু, সাজদাহ ইত্যাদি। যদি একজন নারী নবী নামাজের নেতৃত্ব দিত তবে

জামাআতের পেছনে যে সকল পুরুষ সলাত আদায় করত এটা তাদের এবং ইমাম উভয়ের জন্যই বেশ বিব্রতকর হত।

এখানে আরো অনেক ব্যাপার রয়েছে। যেমন- একজন নবীকে সাধারণ মানুষের সাথে সর্বদা দেখা সাক্ষাৎ করতে হয়। কিন্তু এটা একজন মহিলা নবীর পক্ষে অসম্ভব। কারণ ইসলাম নারী-পুরুষ পরস্পরের মেলামেশার ক্ষেত্রে বাধ্যবাধকতা আরোপ করেছে। যদি মহিলা নবী হতো এবং স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় সে যদি গর্ভবতী হতো, তবে তার পক্ষে কয়েক মাস নবুওয়াতের স্বাভাবিক দায়িত্ব পালন করা সম্ভব হতো না।

অপরদিকে একজন পুরুষের পক্ষে পিতৃত্ব এবং নবুওয়াতের দায়িত্ব পালন করা একজন মহিলার মাতৃত্ব এবং নবুওয়াতের দায়িত্ব পালন করা থেকে তুলনামূলক সহজ। কিন্তু আপনি যদি নবী বলতে শুধু বোঝেন, এমন একজন ব্যক্তি যিনি আল্লাহ পছন্দের এবং যিনি পবিত্র ও খাঁটি ব্যক্তি, তবে সেখানে কিছু নারীর উদাহরণ রয়েছে- আমি এখানে উত্তম উদাহরণ হিসেবে উল্লেখ করব মারইয়াম আ. এর নাম। তিনি ছিলেন মনোনীত এবং পরিশুদ্ধ। তিনি ছিলেন ঈসা আ. এর মা।

সুরাহ আল ইমরানের ৪২ নং আয়াতে উল্লেখ আছে- ‘যখন ফেরেশতারা বলেছিল, হে মারইয়াম! আল্লাহ আপনাকে মনোনীত করেছেন, পবিত্র করেছেন এবং নির্বাচিত করেছেন বিশ্বজগতের নারীদের ওপর।’

এছাড়াও সুরাহ তাহরিম-এ ফেরাউনের স্ত্রী আছিয়ার কথা উদাহরণ হিসেবে নিতে পারেন- ‘আল্লাহ বিশ্বাসীদের জন্য ফেরাউনের স্ত্রীর (আছিয়া) অবস্থা বর্ণনা করেছেন।’

ফিরাউনের স্ত্রী আল্লাহর কাছে দু’আ করেছিলেন- ‘হে আমার রব! আমার জন্য বেহেশতের মধ্যে আপনার সন্নিকটে ঘর নির্মাণ করে দিন, আর আমাকে ফেরাউন থেকে এবং তার (কুফুরি) আচরণ থেকে রক্ষা করুন, আর আমাকে সমস্ত অত্যাচারী লোকজন থেকে হিফাজত করুন।

আত-তাহরিম, আয়াত ১১

একটু কল্পনা করুন, তিনি ছিলেন তৎকালীন বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাশালী সম্রাট ফারাও-এর স্ত্রী। অথচ তিনি আল্লাহর ভালবাসার জন্য নিজের আরাম-আয়েশ ও বিলাসিতা ত্যাগ করতে চেয়েছেন। সুতরাং আপনি যদি বুঝাতে চান আল্লাহর পছন্দের, পবিত্র ও খাঁটি তাহলে আপনি তাদের উদাহরণ হিসেবে নিতে পারেন।